Others PDF Books

ভ্রমর কইও গিয়া তসলিমা নাসরিন Pdf (eBook)

বইয়ের নাম : ভ্রমর কইও গিয়া
লেখকের নাম: তসলিমা নাসরিন
ক্যাটাগরি: উপন্যাস
প্রচ্ছদ অঙ্কন: সমর মজুমদার
পাবলিকেশন্স: কাকলী প্রকাশনী
মোট পৃষ্ঠা: ৭৯ পেজ
ফাইল সাইজ: ১ মেগাবাইট
প্রথম প্রকাশ : জুলাই ১৯৯৩ সাল
ফাইল ফরম্যাট: পিডিএফ (pdf)

ডাউনলোড করুন—Vromor koiyo giya by taslima nasrin Pdf Free (eBook) links-

Drive_Link_01 — Mega_Link_02 — Box_Link_03

vromor-koiyo-giya-taslima-nasrin-pdf

ভ্রমর কইও গিয়া তসলিমা নাসরিন বই রিভিউ:

বইটির মূল চরিত্রে রয়েছে হীরা নামের একজন প্রাপ্তবয়স্কা নারীকে নিয়ে যাকে পরিবার থেকে অনেক ঘটা করে আলতাফ নামের একজন স্বয়ংসম্পূর্ণ ছেলের সাথে বিয়ে দিয়ে দেওয়া হয়। আলতাফের চরিত্রে বিন্দুমাত্র দোষ নেই। নেই কোনো নারী সঙ্গের দোষও। কোনো মেয়ের সাথে সে প্রেমের সম্পর্কও করেনি। আর তার টাকা-পয়সারও কোনো অভাব নেই। এমন সৎ পাত্রের হাতে কন্যা সম্প্রদান করতে পেরে খুশি হীরার পরিবার।

বিয়ের পর আলতাফ হীরাকে সোনাদানা থেকে শুরু করে দুহাত ভরে সব কিছু ঢেলে দিয়েছে। হীরাকে সময় দিতেও আলতাফ কার্পণ্য করে না। কিন্তু এত কিছু পেয়েও হীরা তৃপ্ত নয়। তার চায় অন্যকিছু, যার বিনিময়ে পৃথিবীর সব সম্পদ হীরাকে এনে দিলেও সে তৃপ্ত হবে না। আর আলতাফও তাকে সেটা দিতে অক্ষম। এভাবেই চলতে থাকে কাহিনী।

বইটির যে সবকিছু খারাপ দিক দিয়ে পরিপূর্ণ তা নয়। সামান্য ভালো দিকও আছে। লেখিকার সুন্দর করে সহজবোধ্য ভাষায় কাহিনী ফুটিয়ে তোলার দক্ষতা রয়েছে। এই বইতেও তিনি সেই দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন।

কিন্তু একটি বইয়ের অধিকাংশ যেটা খারাপ দিক, সেই বই আমি মনে করি প্রত্যাখ্যান করা উচিৎ। “ভ্রমর কইও গিয়া” বইটি এমন একটি বই, যেটা কারো পড়াই উচিৎ নয়। এর বেশ কিছু কারণ রয়েছে। এই বইতে লেখিকা প্রাপ্তবয়স্ক নারী-পুরুষের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের রগরগে বর্ণনা দিয়েছেন। বইয়ের মত একটি পবিত্র বস্তুতে এ ধরণের বর্ণনা দেওয়া মোটেও সমীচীন নয়।

এছাড়া, লেখিকা উপন্যাসের মাধ্যমে নারীকে পঙ্কিল পথে পা বাড়ানোর জন্য উসকানি দিয়েছেন আর পুরুষদের পরোক্ষভাবে করেছেন হেয় প্রতিপন্ন। উনি যে মেসেজ এই উপন্যাসে দিয়েছেন, তা যদি বাস্তবে প্রতিফলিত হয়, তাহলে বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সমাজ উৎসন্নে চলে যাবে। এজন্য উপন্যাসটি আমার নিকটে নিন্দনীয় বলে মনে হয়েছে।

পরিশেষে বলব, আমি নারী স্বাধীনতায় বিশ্বাসী এবং নারী জাতের উপর বিনম্র শ্রদ্ধাশীল। একটা সমাজে মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। সেই অর্ধেক জনশক্তি একটা সমাজ বা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। কিন্তু লেখিকা তসলিমা নাসরিন যে নারীবাদ ধারণার প্রবর্তন করেছেন, তা সমাজের জন্য কল্যাণকর বলে মন হয় না।

© শিবলী শায়িক

তসলিমা নাসরিন সম্পর্কে জানুন:

লেখিকা: তসলিমা নাসরিন 
জন্মসাল১৯৬২ সাল
জন্মস্থান: বাংলাদেশের ময়মনসিংহে
প্রথম কাব্যগ্রন্থ:  ‘শিকড়ে বিপুল ক্ষুধা’ যা ১৯৮৬ সালে তাঁর প্রকাশ করেন
পঞ্চম উপন্যাস: “লজ্জা” বইটি ১৯৯৩ সালে প্রকাশ, যেখানে অসমীচীন কাহিনী চিত্রায়নের মাধ্যমে অনৈতিক মতবাদ পেশ করেন।
খ্যাতি: সমালোচিত, বিতর্কিত লেখক, নাস্তিক, ছাত্রাবস্থায় “সেঁজুতি” নামে ম্যাগাজিন পত্রিকা প্রকাশ ও সম্পাদনার দায়িত্ব গ্রহণ. 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!