Bangla Pdf Download All

শেয়ার বাজার শেখার বই Pdf | Share Market a to z Bangla Pdf Download

 হ্যালো বন্ধুরা, শেয়ার বাজার শেখার Bangla Pdf Book Download link নিয়ে আপনাদের সামনে আবারো হাজির হয়েছি। এ বইটি পড়ে আপনি Share Market বিষয়ক সকল তথ্য a to z Bangla তেই জানতে পারবেন। ব্যবসা সংক্রান্ত বাংলা বইটি কেমন লেগেছে কমেন্ট করে জানাবেন।

বইয়ের নাম: শেয়ার বাজার বিনিয়োগঃ টেকনিক্যাল ও ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস 

লেখকঃ মোহাম্মদ আনোয়ার আলী

ফাইল সাইজ: ৮ মেগাবাইট

ফরম্যাট: পিডিএফ ডাউনলোড

বইটি পড়ে শেয়ার বাজার কি হালাল? নাকি হারাম? শেয়ার বাজার সম্পর্কে ধারণা পাবেন। আপনার মনে আসা জিজ্ঞাসা গুলো নিয়ে তৈরি শেয়ার বাজার শিক্ষার এ বইটি আপনাকে শেয়ার বাজারের নিয়ম কানুন গুলো বুঝিয়ে দেবে।

শেয়ার বাজার ও মুদ্রা বাজারের মধ্যে পার্থক্যঃ

মূলধন বাজার বা শেয়ার বাজার ও মুদ্রা বাজারের মধ্যে যে পার্থক্যটি বিদ্যমান সেটি হলাে সময় পরিধির পার্থক্য। মুদ্রা বাজার হচ্ছে স্বল্পকালের বাজার, সেখানে খুবই অল্প সময়ের জন্য লেনদেন হয়। যেমন : ইন্টার ব্যাংক মানি মার্কেটে বাজারের সুদ বা লাভ নির্ভর করে মুদ্রার চাহিদা ও সরবরাহের ওপর। এখানে অনূর্ধ্ব এক বছরের জন্য পুঁজি সরবরাহ করা হয়। আর শেয়ারবাজার বা পুঁজি বাজারে বিনিয়ােগ হবে বেশ কিছু সময়ের জন্য। 

বিনিয়োেগ করে কোম্পানির শেয়ার ক্রয় করা হয় এবং কোম্পানি লাভ করলে বছর বছর বােনাস শেয়ার দেবে। এই বাজারে ঝুঁকির বিষয়টি বেশি থাকে। ঝুঁকি ওঠা-নামা করে থাকে শেয়ারের বাজারদরের উত্থান-পতন থেকে। এখানে মােটামুটি ৫ বছর বা তারও বেশি মেয়াদের জন্য পুঁজি সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

শেয়ারবাজারের প্রকারভেদ ও তাদের অবস্থানঃ

বাংলাদেশের দুটি স্থানে শেয়ারবাজারের কেনাবেচা হয়। এর একটি ঢাকার বাণিজ্যিক এলাকা মতিঝিলে আর অন্যটি বন্দরনগরী চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ : ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ১৯৫৪ সালের ২৮ এপ্রিল ইস্ট পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জ এসােসিয়েশন লিমিটেডে হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ১৯৫৬ সালে এর আনুষ্ঠানিক লেনদেন শুরু হয়। ১৯৬২ সালের ২৩ জুন এর নাম পরিবর্তন করে হয় ইস্ট পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জ লি.।

১৯৬৪ সালের ১৩ মে আবার এর নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ দেশের প্রধান পুঁজিবাজার। এখানে অত্যাধুনিক স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তির মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের সিকিউরিটিজ (শেয়ার ডিবেঞ্চার, মিচ্যুয়াল ফান্ড এবং বন্ড) লেনদেন হয়। বর্তমানে এ বাজারে সাড়ে তিনশরও বেশি সিকিউরিটিজের লেনদেন হয়। যার মূল্যমান ১০০০ বিলিয়নেরও বেশি এবং দেশের জিডিপির প্রায় ১০ শতাংশ।

শেয়ার বাজারের কলাকৌশল ও শেয়ারবাজারে অংশগ্রহণঃ

শেয়ার বাজারের কলাকৌশল ও শেয়ারবাজারে অংশগ্রহণঃ

 অনেকেই এ ধরনের প্রশ্ন করে থাকেন যে, শেয়ারবাজারে কেন, আরও অনেক ব্যবসা তাে আছে। অন্য কোথাও কি পুঁজি বিনিয়ােগ করে লাভবান হওয়া যায় না? এ রকম প্রশ্ন মনে দেখা দেয়া স্বাভাবিক। যাদের মনে এ ধরনের প্রশ্ন জেগে থাকে, তাদের উদ্দেশে বলব, শেয়ারবাজার ব্যবসার এমন একটি জায়গা যেখানে একজন বিনিয়ােগকারীর ক্ষতির চেয়ে লাভের দিকটিই বেশি। প্রয়ােজন শুধু সচেতনতা ও বিচক্ষণতা ও শেয়ার বাজারের কলাকৌশল । যারা প্রথমবারের মতাে শেয়ারে অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছেন তাদের একটি বিষয় মনে রাখতে হবে, এ বাজারের প্রত্যেকেই ব্যক্তিগতভাবে লাভবান হন। পাশাপাশি রাষ্ট্রীয় ও জাতীয় পর্যায়ে সমৃদ্ধি ঘটে। তাহলে মূলকথা দাঁড়াচ্ছে এই যে, আয় এবং মুনাফা- এ দুটোর জন্যই একজন ব্যক্তি শেয়ারবাজারে অংশগ্রহণ করে থাকে। পাশাপাশি আর একটি বিষয় হলাে, এ বিনিয়ােগে ঝুঁকি একেবারে নেই বললেই চলে। এখানে একজন ব্যক্তি একাই শ্রম দেন এবং একাই লাভবান হন। অতিরিক্ত কোনাে লােকবলের প্রয়ােজন হয় না।

শেয়ার বাজারের নিয়ম কানুন ও শেয়ারবাজারে বিনিয়ােগঃ

 ১মে শেয়ার বাজার শিক্ষা গ্রহণ করুন। যে কোনাে বিনিয়ােগকারী বিশেষত ক্ষুদ্র বিনিযােগকারীদের কোনাে কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়ােগ করার আগে প্রথমত বাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির আর্থিক হিসাব বিবরণীতে উল্লেখিত তথ্য সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা নিতে হবে। দ্বিতীয়ত, শেয়ারবাজার সম্পর্কিত কিছু টার্মস বা বিষয় যেমন ইপিএস, ডিভিডেন্ড বা লভ্যাংশ, ডিভিডেন্ড ইয়েল্ড, প্রাইস আর্নিং র শিও, নিট অ্যাসেট ভ্যালু ইত্যাদি সম্পর্কে জানতে হবে। 

শেয়ার বাজারের নিয়ম কানুন ও শেয়ারবাজারে বিনিয়ােগঃ

যেভাবে শুরু করতে হবে-

এবারে আসুন জেনে নেয়া যাক কিভাবে শেয়ার ব্যবসা শুরু করতে হবে।

শেয়ার ব্যবসা শুরু করতে হলে প্রথমেই একটি BO account খুলতে হবে। ব্রোকার হাউস থেকে BO account খুলতে হয়। শেয়ার যেখানে বসে কেনা-বেচা হয় তাকে ব্রোকার হাউস বলে। আপনি আপনার এলাকার বা আপনি যেখান থেকে ব্যবসা করতে চান সে রকম একটি ব্রোকার হাউসে গিয়ে BO account খুলতে পারবেন। আপনি single অথবা joint account খুলতে পারবেন। ব্রোকারকে বললে আপনাকে তারা একটি ফরম দেবে। ওই ফর্মটি পূরণ করে তাদের কাছে দিতে হবে।

 fare foarta citon (Beneficiary Owner [BO] account opening form) : একজন বিনিয়ােগকারীকে ডিমেটকৃত শেয়ার (Electronic Share) ক্রয়/বিক্রয়ের জন্য Central Depository of Bangladesh Ltd. (CDBL)-এর আওতাধীন যে কোনাে Depository Participant (DP)TO uplo BO Account Opening Form সঠিকভাবে পূরণ করে DPতে BO account open করতে হবে এবং উক্ত Account Number সংরক্ষণ করতে হবে। প্রধানত প্রাথমিক শেয়ার (IPO)তে আবেদন করার জন্য এই নম্বরটি প্রয়ােজন হবে। এটি ১৬ ডিজিটের একটি নম্বর। বিও একাউন্ট যে কোনাে ব্রোকার হাউজে গিয়ে খুলতে হবে। প্রতি দুজন ব্যক্তি ৩টি একাউন্ট খুলতে পারবেন। দুজনে আলাদা আলাদা দুটি, আর দুজনে মিলে আরও একটি একাউন্ট খােলা যাবে।

বিও একাউন্ট খুলতে যা যা লাগেঃ

  • ১। ৩ কপি পাসপাের্ট সাইজের ছবি।
  • ২। আপনার ব্যাংক স্টেটমেন্ট (যে ব্যাংকে আপনার একাউন্ট আছে
  • ওই ব্যাংকে গিয়ে চাইলেই আপনাকে তারা স্টেটমেন্টটি দেবে।
  • ৩। একজন নমিনির ছবি।
  • ৪। আপনার ভােটার আইডির ফটোকপি।

বিভিন্ন ব্রোকার বিভিন্ন ডকুমেন্ট চাইতে পারে। তাই তাদের কাছ থেকে ঠিকভাবে সবকিছু জেনে নিন। BO account খােলার জন্য ব্রোকাররা ৫০০-২০০০ টাকা পর্যন্ত চার্জ করে থাকে।

 খরিদ্দার বা কাস্টমার হিসাব খােলা (Customer AccountOpening Form)

 একজন বিনিয়ােগকারী শেয়ার বাজারে (Secondary Market) বিনিয়ােগে আগ্রহী হলে সর্বপ্রথম তাকে একটি ব্রোকারেজ হাউজে যােগাযােগ করতে হবে। তারপর ব্রোকারেজ হাউজ কর্তৃক সরবরাহকৃত Customer Account Opening Form সঠিকভাবে পূরণ করে ওই হাউজে একটি Customer Account Open করতে হবে এবং ওই Account Number সংগ্রহ করে সংরক্ষণ করতে হবে। সাধারণত একে Customer Code বলে অভিহিত করা হয়। ব্যবসায়িক লেনদেন করতে এই নম্বরটির প্রয়ােজন হয়।

যৌথ হিসাব (Joint account) :

একজন বিনিয়ােগকারী (প্রাতিষ্ঠনিক বিনিয়ােগকারী ছাড়া) একাধিক হিসাব (BO Account) খুলতে পারবেন না। তবে নিজের একক নামে ছাড়াও যৌথ নামে (Joint account) আরেকটি হিসাব (মােট ২টি) খুলতে পারবেন।

শর্তাবলি (Terms & Conditions) : হিসাব খােলার সময় একজন বিনিয়ােগকারীকে BO Account Open করার সময় CDBL Laws অনুযায়ী Terms & Conditions (শর্তাবলি) ভালােভাবে পড়ে স্বাক্ষর করা উচিত।

প্রয়ােজনীয় কাগজপত্র (Important pepers) : যে কোনাে DP-তে একজন BO Account Holder-কে শনাক্ত করার জন্য Account Open করার সময় প্রয়ােজনীয় কাগজপত্র যেমন- নাগরিকত্ব সনদপত্র/পাসপাের্টের সত্যায়িত কপি, ব্যাংক একাউন্টের সার্টিফিকেটের কপি জমা দিতে হবে।

সরাসরি হিসাব খােলা (Direct Account Open) : একজন বিনিয়ােগকারী CDBL-এ Form-06 পূরণ করে (প্রয়ােজনীয় কাগজপত্রসহ) Direct Account Open করতে পারবে। সে ক্ষেত্রে কোনাে DP-র কাছে যেতে হবে না।

মনােনীত করা (Nominee) : A) CDBL By Laws-এর From- 23 সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে এবং Nominee-এর Percentage (%) B) 4769 fafactataia CDBL by Laws Form-23-47 কাগজে Nominee Form-23 ইলেকট্রনিক্স ফরমে রূপান্তরিত হওয়ার পর DP থেকে Nominee Acknowledgement সংগ্রহ করতে পারবে।

হিসাবের ক্ষমতা প্রদান (Power of Attorney) : একজন বিনিয়ােগকারীকে BO Account Open করার জন্য CDBL By Laws অনুুসরণ করবে।

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগঃ টেকনিক্যাল এবং ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস Pdf Download link: Click here to শেয়ার বাজার শেখার বই ডাউনলোড

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!